ইতিহাস গড়া হলো না আইরিশদের!

কেবিন ও’ব্রায়ান আর থম্পসন যদি টেনেটুনে আর ৫০ টা রান করে দিতো! হয়তো জিতেও যেতে পারতো আয়ারল্যান্ড। বলা যায় অভিজ্ঞতার কাছে হেরেছে আইরিশরা।বলা যায় টেস্টে নিজেদের অভিষেক ম্যাচে নতুন এক ইতিহাসের সামনে থেকে ছিটকে গেল আয়ারল্যান্ড। এর আগে অভিষেক টেস্টে একমাত্র অস্ট্রেলিয়াই জিতেছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। আজ যদি আইরিশরা জিতেই যেত তবে অজিদের পাশে আয়ারল্যান্ডের নামটাও জুড়ে যেতো ক্রিকেটের ইতিহাসের পাতায়।ফলোঅনে পড়েও একটা নতুন দলের পক্ষে ঘুরে দাড়ানোটা চাট্টিখানি কথা নয়। সেটা পেরেছে টেস্ট ক্রিকেটে সদ্য অভিষেক হওয়া দল আয়ারল্যান্ড। বৃষ্টির বাগড়ায় ৫ দিনের প্রথম দিন ভেস্তে যায়।ডাবলিনের মালাহাইডে দ্বিতীয় দিনে নিজেদের অভিষেক টেস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে টস জিতে আগে বোলিং করার সিদ্ধান্তই নিয়েছিল উইলিয়াম পোর্টারফিল্ডের আইরিশ দল।ব্যাটিং করতে নেমে প্রথম ইনিংসের শুরুতেই আইরিশ বোলারদের বোলিং তোপে পড়ে পাকিস্তান। এই ইনিংসে মাত্র তিন অর্ধশতকে কোন রকম তিনশো রান পার করে ১৩২ ম্যাচ জয়ী পাকিস্তান।টিম মুরতাঘের ৪ আর স্টুয়ার্ট থম্পসনের ৩ উইকেটে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে ৩১০ রানে ইনিংস ঘোষনা করে আসে পাকিস্তান।ব্যাটিংইয়ে নেমে নিজেদের তৈরি করা উইকেটে সাদাব খান-মোহাম্মস আব্বাসদের সামনে নিজেদের থিতুই করতে পারেনি অভিষিক্ত ১১ আইরিশ ব্যাটসম্যান। আমির,ফাহিমদের বোলিং চাপে মাত্র ১৩০ রানেই গুটিয়ে যায় আয়ারল্যান্ড।ফলোঅনে পড়ে আবারো ব্যাটিংয়ে নামে আয়ারল্যান্ড। প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা ভুলে ঘুরে দাঁড়ানোর মিশনে সফলই বলা যায় আইরিশদের। অভিষেক ম্যাচে ইতিহাস গড়া শতক তুলে স্টুয়ার্ট থম্পসনকে সাথে নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস একাই টেনে নেন কেভিন ও’ব্রায়ান। ব্রায়ানের ব্যাট থেকে আসে ৩৪৪ বলে ১১৮ রান। থম্পসন করেন ৫৩ রান।দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট নেন মোহাম্মদ আব্বাস। ৩ উইকেট নিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারে ১০০ উইকেট পূরণ করেন মোহাম্মদ আমিরও। দ্বিতীয় ইনিংসে শেষ পর্যন্ত সব উইকেট হারিয়ে ৩৩৯ রান করে পাকিস্তানকে ১৬০ রানে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছুড়ে দেয় আইরিশরা।জবাবে ১৬০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই আইরিশদের বোলিং তোপে পড়ে পাকিস্তানি ব্যাটাররা। ১৪ রানে যখন ৩ উইকেট নেই তখন ধরাই হচ্ছিল এই বুঝি জিতে গেলো আয়ারল্যান্ড!কিন্তু সেটি আর হলো কই। আইরিশদের উত্তেজনায় বরফ ঢেলে দিল ইমাম উল হক আর বাবর আজম। দুজনের ব্যাটেই আসে অর্ধশত রানের ইনিংস। ইমাম করেন ৭৪ আর বাবর করেন ৫৯ রান। আইরিশদের হয়ে সর্বোচ্চ ২ উইকেট নেন মুরতাঘ। ১ উউইকেট করে পান র‌্যানকিন আর থম্পসন।অভিষেক ম্যাচে শতক হাঁকানো ইনিংস খেলার জন্য ম্যাচ সেরার পুরষ্কার উঠে কেভিন ও’ব্রায়ানের হাতে।

Facebook Comments
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •